ঢাকা, বুধবার ১২ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পাবনা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক চুন্নুর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

 নিউজ রুমঃ Bijoy Bangla BD 24. COM

 প্রকাশিত: অক্টোবর ২৯, ২০১৯, ৫:১৪

৪৮২ বার পঠিত

পাবনা প্রতিনিধিঃ পাবনা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক মো. সাইদুল হক চুন্নুর বিরুদ্ধে ২ কোটি ৭৫ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আয় গোপনের অভিযোগে গত ১৫ অক্টোবর ২০১৯ইং তারিখে পাবনা দুদক অফিসের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। (মামলা নং ৫ তারিখ ১৫-১০-২০১৯)। মামলার বিবরণে জানা যায়, দুর্নীতি দমন কমিশন, এম সাইদুল হক চুন্নু এর বিরুদ্ধে দুর্নীতির মাধ্যমে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ প্রাথমিক ভাবে অনুসন্ধান করা হয়। প্রাথমিক অনুসন্ধানকালে তার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত অভিযোগ প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় তার প্রতি সম্পদ বিবরণী দাখিলের নোটিশ জারী করা হয়। উক্ত আদেশের আলোকে তিনি বিগত ১২/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে সচিব, দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবরে নির্ধারিত ছকে সম্পদ বিবরনী দাখিল করেন। তার দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণী যাচাই/অনুসন্ধানকালে সংগৃহীত রেকর্ডপত্র, সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের বক্তব্য পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, আসামী জনাব এম সাইদুল হক চুন্নু, প্রাক্তন প্রশাসক, জেলা পরিষদ, পাবনা ১৯৯০ সালে ২২০/১৮৯, জুবলী ট্যাঙ্ক রোড, পাবনায় ৬ কাঠা জমি ক্রয় করেন ১,১৪,৫২০/- টাকায়; ২০১০ সালে উক্ত জমিতে ২২৯৬ বর্গফুটের ০৩ তলা ভবনসহ ২টি টিনশেড রুম নির্মাণে বিনিয়োগ ৪৮,৬১,৫৪৬/- টাকা; ২০১৬ সালে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের উত্তরা এপার্টমেন্ট প্রজেক্টে ১২০০ বর্গফুট ফ্ল্যাটের বিপরীতে অগ্রিম প্রদান ৪,০০,০০০/- টাকা ও ২০১৬ সালে প্লট নং ১৯ (পুরাতন), ২৬ (নতুন), রোড নং ২৭, বøক-জে, বনানী আ/এ, ঢাকায় নির্মিত আর্টিসান রূপসা ক্যাসেল নামীয় ১০তলা ভবনের ৩য় তলায় ২১৭৫ বর্গফুট বিশিষ্ট ফ্ল্যাট নং ২/বি ক্রয় ২,৬০,০০,০০০/- টাকাসহ মোট ৩,১৩,৭৬,০৬৬/- টাকার স্থাবর সম্পদ অর্জন করেন। এছাড়া তিনি ইউনাইটেড কমার্সিয়াল ব্যাংক লিঃ পাবনা শাখা, পাবনায় সঞ্চয়ী হিসাব নং ০৩৫২২০১০০০০০০০১১ তে ০৫/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে স্থিতি ৭৯০/- টাকা, একই ব্যাংকে চলতি হিসাব নং ০৩৫২১০১০০০০০২২৫৮ তে ০৫/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে স্থিতি ৬২,৯৭৪/- টাকা, যমুনা ব্যাংক লিঃ মহাখালী শাখা, ঢাকায় চলতি হিসাব নং ০০৬৪-০২১০০০০৫৫৪ তে ০৬/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে স্থিতি ৫,০০০/- টাকা, আইএফআইসি ব্যাংক লিঃ পাবনা শাখা, পাবনায় সঞ্চয়ী হিসাব নং ৬০৮৪৪৪৪৯০০০৩৫ তে ০৮/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে স্থিতি ১৫,৫১,৮৫৮/- টাকা; ০৮/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে ব্যবসায়িক স্থিতি ৪,২২,৫২৫/- টাকা; ১০ তোলা স্বর্ণালংকার ১০,০০০/- টাকা; ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী ৬,০৩,৮০০/- টাকা; আসবাবপত্র ১,৬৮,০০০/- টাকা ও নগদ অর্থ ৭৮,৩২১/- টাকাসহ মোট ২৯,০৩,২৬৮/- টাকার অস্থাবর সম্পদ অর্জন করেন। এভাবে তিনি স্থাবর সম্পদ ৩,১৩,৭৬,০৬৬/- টাকা ও অস্থাবর সম্পদ ২৯,০৩,২৬৮/- টাকাসহ মোট (৩,১৩,৭৬,০৬৬ + ২৯,০৩,২৬৮) = ৩,৪২,৭৯,৩৩৪/- টাকার সম্পদ অর্জন করেন। তিনি একজন আয়কর দাতা। তিনি ১৯৮৮-৮৯ হতে ২০১৭-১৮ করবর্ষ পর্যন্ত মোট ৩,৯০,২৮,২৫১/- টাকা আয় প্রদর্শন করেন। উক্ত সময়ে তার পারিবারিক ব্যয় রয়েছে ৪৪,১৫,৫৩৭/- টাকা। পারিবারিক ব্যয় বাদে তার নীট আয় বা সম্পদের পরিবৃদ্ধি পাওয়া যায় (৩,৯০,২৮,২৫১-৪৪,১৫,৫৩৭)= ৩,৪৬,১২,৭১৪/- টাকা। তার ৩,৪২,৭৯,৩৩৪/- টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ অর্জনের বিপরীতে আয়ের উৎস রয়েছে ৩,৪৬,১২,৭১৪/- টাকা। উক্ত সম্পদের মধ্যে তিনি ১৯৯৯-২০০০ করবর্ষের আয়কর রিটার্ণে আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর ১৯বি ধারার আওতায় ১৫,৫০,০০০/- টাকা আয় প্রদর্শন করেন। এছাড়া তিনি ২০১৬-১৭ করবর্ষের রিভাইস্ড আয়কর রিটার্ণে আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর ১৯ বি ধারার আওতায় ২,৬০,০০,০০০/- টাকা আয় প্রদর্শন করেছেন। এভাবে প্রদর্শিত মোট (১৫,৫০,০০০ + ২,৬০,০০,০০০) = ২,৭৫,৫০,০০০/- টাকা আয়ের বিপরীতে কোন আয়ের খাত বা আয়ের উৎস পাওয়া যায়নি। তার অর্জিত ৩,৪২,৭৯,৩৩৪/- টাকার সম্পদের মধ্যে ২,৭৫,৫০,০০০/- টাকার সম্পদের বিপরীতে তার বৈধ আয়ের কোন উৎস পাওয়া যায়নি, যা তার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত অবৈধ সম্পদ মর্মে প্রতিয়মান হয়। এভাবে তিনি গত ১২/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে ৩,৪২,৭৯,৩৩৪/- টাকার সম্পদের মধ্যে ২,৭৫,৫০,০০০/- টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন পূর্বক দখলে রেখে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, ২০০৪ এর ২৭(১) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ প্রাথমিক ভাবে প্রমানিত হওয়ায় মুহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন, উপপরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয়, পাবনা বাদী হয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয়, পাবনা’র তদন্ত নং-০৫ তারিখ-১৫/১০/২০১৯ খ্রিঃ দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি তদন্তাধীন এবং আসামী পলাতক রয়েছে।

সর্বশেষ
অপরাধ বিভাগের সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত


Copyright ©  BijoyBanglaBD24.com                                 Developed by VIP TECHNOLOGY